ভ্যাকসিনে কি আপনার ঋতুচক্র বদলে যেতে পারে?
ইম্পেরিয়াল কলেজ, লন্ডন এর রিপ্রোডাকটিভ ইমিউনোলজিস্ট ড. ভিকি মেল বিবিসি’কে বলেন, “জবাব হলো, আমরা তা এখনও নিশ্চিতভাবে জানিনা। তবে এরকম ঘটেছে বলে অনেকেই জানিয়েছে। মূল ব্যাপারটা হলো, অনেকেই বলছেন তাদের ঋতুস্রাব স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি হচ্ছে। অথবা পিরিয়ড শুরু হতে সামান্য দেরী হচ্ছে। তবে আমরা জানি যে অন্য কিছু ভ্যাকসিন রয়েছে যেগুলো নেয়ার পর আপনার মাসিক চক্রে স্বল্প মেয়াদে কিছু পরিবর্তন ঘটতে পারে।”

পিরিয়ডের উপর ভ্যাকসিনের প্রভাব কেন পড়ে?

“প্রথমত আমরা জানি যে দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা সেক্স হরমোনের উপর প্রভাব ফেলে । তেমনি রোগ প্রতিরোধ করার ক্ষমতার ওপরও সেক্স হরমোনের একটা প্রভাব রয়েছে। আর আপনার মাসিক নিয়ন্ত্রন করে সেক্স হরমোন। তাই, ভ্যাকসিনের জন্যই হোক কিংবা আপনি ভাইরাসে আক্রান্ত বলেই হোক, কোন কারণে আপনার রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা যখন একটা বড় ধাক্কা খায়, তখন আপনার ঐ হরমোনেও পরিবর্তন ঘটতে পারে। যেটা আবার আপনার পিরিয়ডের সময় এবং ঋতুস্রাবের মাত্রাকে বদলে দিতে পারে।
আপনার জরায়ুর দেয়ালে প্রচুর রোগপ্রতিরোধী কোষ থাকে। পরিবর্তনের একটা সম্ভাব্য কারণ হলো, ভ্যাকসিন নেয়ার পর কিংবা অসুস্থ হওয়ার পর আপনার রোগপ্রতিরোধ ব্যবস্থা সচল হয় যা আপনার মাসিকের ওপর প্রভাব ফেলতে পারে। “

এটা নিয়ে কোন দীর্ঘকালীন সমস্যা হতে পারে?
না, বেশিরভাগ যারা মাসিকে পরিবর্তনের কথা জানিয়েছেন, তারা বলেছেন তাদের ক্ষেত্রে এটা ঘটেছে একমাসে। কেউ কেউ অবশ্য ২ মাসের কথাও বলেছেন। অন্য আরেকটি কারণ নিয়ে অনেকেই সামান্য উদ্বিগ্ন। তারা ভাবছেন, “হায়, আমার পিরিয়ডে পরিবর্তন ঘটেছে। তাহলে আমার হয়তো কোন সমস্যা তৈরী হয়েছে। আমার সন্তানধারণের ক্ষমতায় হয়তো সমস্যা হবে। কিন্ত যেসব ভ্যাকসিন থেকে পিরিয়ডে স্বল্পমেয়াদী সমস্যা তৈরী হয়েছে তা থেকে আমরা জানি যে, সন্তান ধারণের ক্ষমতার উপর এর কোনো প্রভাব নেই।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তাও একমত যে, ভ্যাকসিনে সন্তানধারণের ক্ষমতা নষ্ট হয় বলে, সতর্ক করে যেসব গুজব রটানো হয়েছে তা আসলে বানোয়াট গল্প।