কোন নিদির্ষ্ট জীবাণু (বিপাকীয়ভাবে নিস্ক্রিয়)  বা জীবাণুর দেহের কোন নিদির্ষ্ট  অংশের (যেমনঃ গ্লাইকোপ্রোটিন,  ডিএনএ, আরএনএ) সাথে বিভিন্ন ধরনের লিপিড, খনিজ লবন, পানি ও স্টেবিলাইজার মিশিয়ে ভ্যাক্সিন তৈরি করা হয়। ভ্যাক্সিনের কার্যকারিতা দীর্ঘ সময় ধরে ঠিক রাখার জন্যে স্টেবিলাইজার ব্যবহার করা হয়। জেলাটিন হলো এক ধরনের স্টেবিলাইজার যা মুরগী, গবাদি পশু, শূকর কিংবা মাছের মতো প্রাণীর কোলাজেন থেকে পাওয়া যায়।  আর পোরসিন জেলাটিন পাওয়া যায় শুয়োরের কোলাজেন থেকে। ভ্যাক্সিন সংরক্ষণের সময় ভ্যাক্সিনকে নিরাপদ রাখতে স্টেবিলাইজার হিসেবে পোরসিন জেলাটিন বহুদিন ধরে ব্যবহার হয়ে আসছে। ভ্যাক্সিনে ব্যবহার করার সময়, পোরসিন জেলাটিনকে অত্যন্ত পরিশোধিত করে খুব ছোট অণুতে ভেঙ্গে দেওয়া হয় যাকে পেপটাইড বলে। মার্কিন  যুক্তরাষ্ট্রের ইনফ্লুয়েঞ্জা ভ্যাক্সিন-ফ্লুমিস্ট, এম.এম.আর ভ্যাক্সিন, এম. এম. আর. ভি ভ্যাক্সিন-প্রোকুয়াড, জলাতঙ্ক ভ্যাক্সিন-রাবার্টে, টাইফয়েড ভ্যাক্সিন-ভিভোটিফ, ভ্যারিসেলা ভ্যাক্সিন-ভারিভ্যাক্স, ইয়োলো ফিভার ভ্যাক্সিন-ওয়াই এফ ভ্যাক্সে পোরসিন জেলাটিন জেলাটিন ব্যবহার করা হয়। যুক্তরাজ্যেও তিন ধরণের ভ্যাক্সিনে (ফ্লো ভ্যাকসিন-ফ্লুঞ্জি টেট্রা, এম.এম.আর ভ্যাক্সিন-ভ্যাক্সপ্রো, দাদের ভ্যাক্সিন-জোস্টাভ্যাক্সে) পোরসিন জেলাটিন ব্যবহার করা হয়।

মুসলিম দেশগুলোর মধ্যে জেলাটিন সমৃদ্ধ ভ্যাক্সিন নিয়ে উদ্বেগ সৃষ্টি হয়েছে কেননা এই জেলাটিনের উৎস হতে পারে শুকর। করোনা ভ্যাক্সিনের ক্ষেত্রে ইন্দোনেশিয়ার মুসলমানরা এই উদ্বেগ প্রথম  উপস্থাপন করে।

ধর্মীয় বিষয়টি বিবেচনা করে যুক্তরাজ্যে অনেক আগেই জেলাটিন মুক্ত এম.এম.আর ভ্যাক্সিন তৈরি করেছিল। কিন্তুু এখনো অনেক জেলাটিন সমৃদ্ধ ভ্যাক্সিনের বিকল্প তৈরি করা সম্ভব হয়নি। অনেক সংস্থা বহু বছর ধরে শুয়োরের জেলাটিন মুক্ত ভ্যাক্সিন তৈরি করার জন্যে কাজ করে যাচ্ছে। সুইস ফার্মাসিউটিক্যাল নোভার্টিস ইতিমধ্যে শুয়োরের জেলাটিনমুক্ত মেনিনজাইটিস ভ্যাক্সিন তৈরি করেছে। সৌদি ও মালয়েশিয়া ভিওিক এ জে ফার্মা বর্তমানে তাদের নিজিস্ব একটিতে কাজ করছে।

তাহলে তারা স্টেবিলাইজার হিসেবে জেলাটিনের বিকল্প হিসেবে কি ব্যবহার করেছে। জেলাটিন ছাড়াও ল্যাকটোজ, সুক্রোজ, সরবিটল, ডেক্সট্রান, হেমাজেল, অ্যালবুমিন ইত্যাদিও স্টেবিলাইজার হিসেবে ব্যবহার করা যায়। ভ্যাকসিনের স্টেবিলাইজার হিসেবে সয়া প্রোটিন বা সুক্রোজের কর্মক্ষমতা শুয়োরের জেলাটিন থেকেও সন্তোষজনক।

এখন দেখা যাক কোভিড-১৯ ভ্যাক্সিনে কি জেলাটিন না অন্য কিছু স্টেবিলাইজার হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে। বায়োএনটেক, মডারনা, অ্যাস্ট্রোকেনেকা কোনটিতেই স্টেবিলাইজার হিসেবে জেলাটিন ব্যবহার করা হয়নি। এই তিনটি ভ্যাক্সিনেই স্টেবিলাইজার হিসেবে সুক্রোজ ব্যবহার করা হয়েছে। সিনোভ্যাক, সিনোফার্ম, ক্যানসিনো, গামালিয়া ভ্যাক্সিন, জনসন এন্ড জনসনের ভ্যাক্সিন ও নোভাভ্যাক্স এই ভ্যাক্সিনগুলোতে জেলাটিন ব্যবহার করা হয়েছে কিনা প্রস্ততকারকরা তার বিবৃতি এখনো প্রকাশ করেনি। তাই এখন পর্যন্ত নিশ্চিত না যে তারা স্টেবিলাইজার হিসেবে কি ব্যবহার করেছে। যেহেতু বায়োএনটেক, মরডানা , অ্যাস্ট্রোজেনেকা এই তিনটি ভ্যাক্সিনেই জেলাটিন ব্যবহার করা হয়নি তাই এই তিনটি ভ্যাক্সিন ব্যবহারে ইসলামী আইনে কোন বাধা নেই।

লেখক: সিনিয়র মাইক্রোবায়োলজিষ্ট , এসিআই হেলথকেয়ার লিমিটেড।

সুত্র: ফার্মমা বাংলা