উপাদানঃ
প্রতিটি চাপীয় নিঃসরণে আছে সালমেটেরল জিনাফোয়েট আইএনএন যা ২৫ মাইক্রোগ্রাম সালমেটেরল এর সমতুল্য।
বর্ণনাঃ
সালমেটেরল জিনাফোয়েট ইনহেলারের কার্যকর উপাদান হচ্ছে সালমেটেরল জিনাফোয়েট আইএনএন যা একটি সুনির্দিষ্ট, দীর্ঘমেয়াদী কার্যকরী বিটা-২ এগোনিস্ট এবং যা এজমাসহ অন্যান্য বিস্তৃত বায়ুপথের বাধা নিরাময়ে ব্যবহৃত হয়। ইহা প্রচলিত ব্রঙ্কোডায়ালেটরের তুলনায় অনেক বেশি দীর্ঘস্থায় ও সুনির্দিষ্টভাবে কার্যকরী। কারণ দীর্ঘমেয়াদী বিটা-২ এগোনিস্টসমুহ হিস্টামিন জনিত ব্রঙ্কোকনস্ট্রিকশনে সালবিউটামল জাতীয় স্বল্পস্থায়ী ঔষধসমুহের তুলনায় ৪ গুণেরও অধিক কার্যকারিতা প্রদর্শন করে। সালমেটেরল জিনাফোয়েট স্টেরয়েডের ব্যবহার ব্যতিরেকেই দীর্ঘমেয়াদী ব্রঙ্কোডায়ালেটর হিসেবে এজমার উপসর্গ ও স্বল্পমেয়াদী বিটা-২ এগোনিস্টসমুহ ব্যবহারের প্রয়োজনীয়তা কমায়।
নির্দেশনাঃ
সালমেটেরল জিনাফোয়েট রাত্রীকালীন এবং পরিশ্রমজনিত এজমাসহ বিস্তৃত বায়ুপথের প্রতিবন্ধকতা দূরীকরণে দীর্ঘমেয়াদী চিকিৎসা হিসেবে বহুলভাবে নির্দেশিত। সালমেটেরল জিনাফোয়েট শিশু ও প্রাপ্তবয়স্ক উভয়ক্ষেত্রেই নুন্যতম ১২ ঘন্টার জন্য হিস্টামিন অথবা মিথাকোলিন জনিত এজমা প্রতিরোধ করে। এটি এজমা রোগীদের উন্নততর চিকিৎসা প্রদানে সক্ষম। শিশুদের এজমা চিকিৎসায় সালমেটেরল জিনাফোয়েট ব্যবহারে থিওফাইলিন অথবা উচ্চমাত্রার কর্টিকোস্টেরয়েডের ব্যবহার এড়ানো যেতে পারে।
সেবনমাত্রা ও সেবনবিধিঃ
সালমেটেরল জিনাফোয়েট এর নির্দেশিত মাত্রা হলো ৫০ মাইক্রোগ্রাম হারে দৈনিক ২ বার অর্থাৎ ২টি চাপীয় নিঃসরণ। তবে রোগের তীব্রতায় ১০০ মাইক্রোগ্রাম হারে দৈনিক ২ বার দেয়া যেতে পারে।
অথবা চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী সেব্য।
প্রতিনির্দেশনাঃ
থাইরোটক্সিকোসিসে আক্রান্ত রোগীদের ক্ষেত্রে সালমেটেরল জিনাফোয়েট প্রতিনির্দেশিত। এ্যারিদমিয়া সম্ভাবনাযুক্ত হৃদরোগীদের ক্ষেত্রে সালমেটেরল জিনাফোয়েট ব্যবহারে বিশেষ সতর্কতা অবলম্বন করা প্রয়োজন। অনির্দিষ্ট বিটা ব্লকিং ঔষধ গ্রহনকারীদের ক্ষেত্রে এটি অকার্যকর। সালমেটেরল এবং এর যেকোনো উপাদানের প্রতি অতি সংবেদনশীল রোগীদের ক্ষেত্রে এটির ব্যবহার প্রতিনির্দেশিত।
সতর্কতাঃ
তীব্র এজমা রোগীদের গুরুতর অসুস্থতা এমনকি মৃত্যু ঝুঁকি থাকে বলে তাদের ফুসফুসীয় কার্যক্ষমতা পরীক্ষাসহ চিকিৎসার নিয়মিত মুল্যায়ন প্রয়োজন হয়। যাদের তীব্র অথবা অস্থায়ী এজমা রয়েছে, সে সমস্ত রোগীদের ক্ষেত্রে ব্রঙ্কোডায়ালেটর সমুহ মুল অথবা একক চিকিৎসা হিসেবে পরিগণিত করা উচিত নয়। এ সমস্ত রোগীদের ক্ষেত্রে চিকিৎসকের উচিত ওরাল কর্টিকোস্টেরয়েড থেরাপি অথবা কর্টিকোস্টেরয়েড ইনহেলেশেনের সর্বোচ্চ সুপারিশকৃত মাত্রা ব্যবহারের পরামর্শ দেয়া। রোগী যদি লক্ষ্য করেন যে, স্বল্পমেয়াদী ব্রঙ্কোডায়ালেটর কম কার্যকরী হচ্ছে বা স্বাভাবিকের চেয়ে বেশী ইনহেলেশনের প্রয়োজন হচ্ছে, তবে ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে। এমতাবস্থায় রোগীর অবস্থার পুনর্মুল্যায়ন করে অতিরিক্ত চিকিৎসার প্রয়োজনীয়তা বিবেচনায় আনতে হবে। তীব্রভাবে প্রকাশিত এজমার চিকিৎসাও সাধারণভাবে করতে হবে।
সালমেটেরল জিনাফোয়েট এজমার তীব্র উপসর্গসমুহের উপশমের জন্য নয়। এক্ষেত্রে একটি স্বল্পমেয়াদী ব্রঙ্কোডায়ালেটর প্রয়োজন। এ ব্যাপারে রোগীদেরকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাপত্র দিতে হবে। বিটা-২ এগোনিস্ট ব্যবহারের ফলে মারাত্মক হাইপোক্যালেমিয়া দেখা দিতে পারে। রোগী যদি অন্য কোনো কারণে জ্যানথিন জাতক, স্টেরয়েড, ডাই-ইউরেটিক দ্বারা চিকিৎসাধীন থাকেন তাহলে তীব্র এজমায় এটির ব্যবহারে বিশেষ সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। এ সমস্ত ক্ষেত্রে সিরাম পটাশিয়াম মাত্রার দিকে লক্ষ্য রাখার জন্য সুপারিশ করা হয়। যে সমস্ত রোগীর থাইরোটক্সিকোসিস আছে তাদের ক্ষেত্রে সালমেটেরল ব্যবহারের সময় সতর্কতা অবলম্বন করা প্রয়োজন। এই ঔষধটি “যখন যত দরকার” বিবেচনায় ব্যবহার করা উচিত নয়। তবে রাত্রীকালিন এবং পরিশ্রমজনিত এজমা নিয়ন্ত্রনের কার্যকারিতা বিবেচনায় দৈনিক এককমাত্রাার চিকিৎসা বিবেচনা করা যেতে পারে।
পার্শ প্রতিক্রিয়াঃ
সালমেটেরল জিনাফোয়েট ব্যবহারে তেমন কোনো পার্শ প্রতিক্রিয়া পরিলক্ষিত হয় না। যদিও সালমেটেরলের সিস্টেমিক বিটা-২ প্রতিক্রিয়া ১২ঘন্টা যাবত স্থায়ী হয়। সুস্থ্য ব্যক্তির দেহে প্রয়োজনীয় সালমেটেরলের ৪০০ মাইক্রোগ্রাম পর্যন্ত গৃহিত মাত্রা লক্ষ্যনীয় পার্শ প্রতিক্রিয়ার কারণ হয়। যার অধিকাংশই ফার্মাকোলোজিক্যালি নির্ণয় করা যায়। তবে ১০০ মাইক্রোগ্রাম সালমেটেরল ব্যবহারের প্রতিক্রিয়া ৪০০ মাইক্রোগ্রাম সালমেটেরল ব্যবহারের অনুরুপ। শুধুমাত্র সুপরিকল্পিত মাত্রার অধিক সালমেটেরল গ্রহনে হাইপোক্যালিমিয়া, কাঁপুনী এবং প্যালপিটেশন হতে পারে।
সরবরাহঃ
প্রতিটি ক্যানিস্টারে রয়েছে ১২০ টি পরিমাপকৃত মাত্রা যার প্রতিটিতে রয়েছে সালমেটেরল জিনাফোয়েট আইএনএন যা ২৫ মাইক্রোগ্রাম সালমেটেরল এর সমতুল্য।

তাছাড়া স্বাস্থ্য সংক্রান্ত যেকোন তথ্য জানতে যোগাযোগ করুন, “সুরক্ষা”র কর্মীদের সাথে অথবা ফেসবুক থেকে প্রশ্ন করুন ঔষধবার্তা
অথবা ডায়াল করুন ০১৮৩৩৭৭৭৫৩০, ০১৬৮৮৬৯১৭৩৫ নাম্বারে। জরুরী মুহুর্তে যেকোন স্বাস্থ্য সেবা পেতে গুগল প্লে-স্টোর থেকে ডাউনলোড করুন Shurokkha এপস টি।
এপস ডাউনলোড করুন এখান থেকে।

তাছাড়া স্বাস্থ্য সংক্রান্ত যেকোন তথ্য জানতে যোগাযোগ করুন, “সুরক্ষা”র কর্মীদের সাথে অথবা ফেসবুক থেকে প্রশ্ন করুন ঔষধবার্তা
অথবা ডায়াল করুন ০১৮৩৩৭৭৭৫৩০, ০১৬৮৮৬৯১৭৩৫ নাম্বারে। জরুরী মুহুর্তে যেকোন স্বাস্থ্য সেবা পেতে গুগল প্লে-স্টোর থেকে ডাউনলোড করুন Shurokkha এপস টি।
এপস ডাউনলোড করুন এখান থেকে।